স্বাক্ষর জালিয়াতি এবং তথ্য গোপন করার দায়ে ছাত্র ইউনিয়নের ২ নেতার বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা


স্বাক্ষর জালিয়াতি এবং জালিয়াতির তথ্য গোপন করার দায়ে ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটি হতে মিখা পিরেগু বহিষ্কার, তথ্য গোপনে সহযোগিতা করায় নজির আমিন চৌধুরী জয়ের সদস্যপদ স্থগিত
করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন।

স্বাক্ষর জালিয়াতি এবং জালিয়াতির তথ্য গোপন করার দায়ে বিগত ১২ জুন, ২০২১ তারিখে অনুষ্ঠিত ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটি হতে মিখা পিরেগুকে বহিষ্কার করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে ১৪ জুন, ২০২১ তারিখে কারণ দর্শানো নোটিশ প্রেরণ করে ৭২ ঘণ্টার ভেতর নোটিশের উত্তর দিতে বলা হয় এবং উত্তর না দিলে উক্ত সভায় তাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। তিনি নির্ধারিত সময়ের ভেতর কোন উত্তর প্রদান করেননি। নোটিশের উত্তর না দেওয়ায় কেন্দ্রীয় কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। স্বাক্ষর জালিয়াতি এবং জালিয়াতির তথ্য গোপন করার দায়ে সংগঠনের গঠনতন্ত্রের ৫৬(গ) ধারা অনুযায়ী তাকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। একইসাথে মিখা পিরেগুকে স্বাক্ষর জালিয়াতির তথ্য গোপনে সহযোগিতা করায় কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয়ের সদস্যপদ স্থগিত করা হল।

মিখা পিরেগুকে গত ডিসেম্বর মাসে (১৩ ডিসেম্বর, ২০২০) জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সভায় স্বাক্ষর জালিয়াতির দায়ে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আজীবন বহিষ্কার করা হয়। বহিষ্কার হওয়ার সংবাদ তিনি ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় কমিটির নিকট গোপন করেন। গত ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ তারিখে সংবাদমাধ্যমের দরুন স্বাক্ষর জালিয়াতির দায়ে মিখা পিরেগুকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আজীবন বহিষ্কার করার সংবাদটি কেন্দ্রীয় কমিটির নজরে আসে। উক্ত ঘটনায় ছাত্র ইউনিয়ন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ তাকে সভাপতির পদ হতে অব্যাহতি প্রদান করে।

 ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সংসদ ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ মিখা পিরেগুকে তারিখে কারণ দর্শানো নোটিশ প্রদান করলে তিনি মৌখিকভাবে জানান তিনি এই সিদ্ধান্তের বিপরীতে রিভিউ আবেদন করেছেন। কেন্দ্রীয় সংসদ তাকে রিভিউ আবেদনের দলিলাদি এবং তার নির্দোষ হওয়ার প্রমাণ কেন্দ্রীয় সংসদ বরাবর দাখিল করতে বলে। কিন্তু তিনি বিগত ৪ মাসেও তা দাখিল করেননি। তাকে এই ঘটনায় পুনরায় কারণ দর্শানো নোটিশ প্রেরণ করা হলেও তিনি কোন উত্তর দেন নাই। অপরদিকে ২০২০ সালের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত সংগঠনের ৪০তম জাতীয় সম্মেলনে মিখা পিরেগুর ছাত্রত্ব এবং তার অনিয়মের বিষয়ে আলাপ হলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সাবেক সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয় মিখা পিরেগুর অনিয়ম এবং ছাত্রত্ব বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সাথে আলাপ করে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে বলে বিগত কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতিকে অবহিত করেন। নজির আমিন চৌধুরী জয় মূলত মিখা পিরেগুকে জালিয়াতির তথ্য গোপনে সহযোগিতা করেছেন বলেই কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে প্রতীয়মান হয়েছে। ছাত্র ইউনিয়ন কখনো অন্যায়কে প্রশয় দেয় না, নীতি-আদর্শের প্রশ্নে ছাত্র ইউনিয়ন তার জন্মলগ্ন থেকে অবিচল।

 স্বাক্ষর জালিয়াতি ও জালিয়াতির তথ্য গোপনের দায়ে মিখা পিরেগুকে কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে বহিষ্কার এবং জালিয়াতির তথ্য গোপনে সহযোগিতা করায় নজির আমিন চৌধুরী জয়ের সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে।

;